কিডনি ভালো আছে কিনা বোঝার উপায়

শরীরের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ দুটি অঙ্গ হচ্ছে- কিডনি। রক্ত  থেকে বর্জ্য পদার্থ পৃথক করে প্রস্রাবের মাধ্যমে বের করে দেওয়া হলো কিডনির অন্যতম কাজ। কিন্তু নানা রোগে ও সমস্যায় কিডনি ক্ষতিগ্রস্ত হয় ও কখনো কখনো বিকলও হয়ে পড়ে। বিভিন্ন কারণে দিনে দিনে কিডনি রোগের প্রকোপ বেড়ে চলছে। অথচ একটু সচেতন হলে আমরা কিডনি সুস্থ রাখতে পারি।

কিডনির কাজ কিঃ

কিডনি  বহুমুখী কার্য সাধন করে থাকে। কিডনির সর্বাধিক উল্লেখযোগ্য কাজ হল শরীরের বর্জ্য পদার্থ, অতিরিক্ত পানি এবং অন্যান্য উপাদান ফিল্টার করা। কিডনি  শরীরের pH এবং লবণের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। লোহিত রক্ত ​​কণিকার উৎপাদন এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ কিডনি দ্বারা নিঃসৃত হরমোন দ্বারা পরিচালিত হয়। 

হাড় গঠন এবং পেশী সংকোচনে  জন্য প্রয়োজনীয় ভিটামিন ডি এর একটি ফর্ম সক্রিয় করার পাশাপাশি, আপনার কিডনি আপনার শরীরের ক্যালসিয়াম শোষণ নিয়ন্ত্রণের কাজ করে থাকে। আমাদের সামগ্রিক স্বাস্থ্য এবং সুস্থতা কিডনির স্বাস্থ্যের উপর নির্ভরশীল। সুস্থ কিডনি  সঠিক পরিস্রাবণ এবং বর্জ্য নির্মূলের পাশাপাশি আমাদের শরীরের কাজ করার জন্য প্রয়োজনীয় হরমোন তৈরি করে।

আরো পড়ুনঃগর্ভাবস্থায় প্রয়োজনীয় টেস্ট

কিডনি রোগের প্রকারভেদঃ

❖দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ (CKD): 

CKD হল একটি প্রগতিশীল অবস্থা যা সময়ের সাথে সাথে কিডনির কার্যকারিতা ধীরে ধীরে হারানোর দ্বারা চিহ্নিত করা হয়। এটি প্রায়ই ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ বা কিডনি সংক্রমণের মতো অন্তর্নিহিত অবস্থার কারণে ঘটে।

❖তীব্র কিডনি আঘাত (AKI):

AKI হঠাৎ ঘটে এবং প্রায়শই তাৎক্ষণিক চিকিৎসা হস্তক্ষেপের সাথে বিপরীত হয়। এটি গুরুতর সংক্রমণ, ওষুধ, ডিহাইড্রেশন বা কিডনি ব্লকেজের কারণে হতে পারে।

❖পলিসিস্টিক কিডনি রোগ (PKD): 

PKD হল একটি উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত অবস্থা যেখানে কিডনিতে অসংখ্য সিস্ট তৈরি হয়, যার ফলে সেগুলি ধীরে ধীরে বড় হয় এবং কার্যকারিতা হারায়।

❖কিডনিতে পাথর: 

কিডনিতে পাথর হল শক্ত জমা যা কিডনিতে তৈরি হয়। এগুলি গুরুতর ব্যথার কারণ হতে পারে এবং ডিহাইড্রেশন, নির্দিষ্ট ওষুধ বা উচ্চ-সোডিয়াম খাদ্যের মতো কারণ হতে পারে।

শুধু কিডনি রোগ নিয়ে কিডনি রোগীরা সচেতন হবে তা নয়। যে কোন সুস্থ মানুষকেও জানতে হবে কিভাবে কিডনি ভালো রাখার উপায় ,প্রতিরোধ করতে হবে কিডনি বৈকল্যকে ।কিডনি ভালো রাখতে হলে যে সমস্ত কাজগুলো আমাদের করতে হবে.............. 

আরো পড়ুনঃপলিসিস্টিক ওভারি সিন্ড্রোম বা ডিম্বাশয়ে একাধিক ছোট ছোট সিস্ট হলে মেয়েরা কী করবেন?

স্বাস্থ্যকর জীবনধারা ঃ

নিয়মিত ব্যায়াম করলে দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করা যায়। নিয়মিত ব্যায়াম রক্তচাপ কমায় এবং হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্য বাড়াতে সাহায্য করে, যা কিডনির ক্ষতি প্রতিরোধের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।একটি স্বাস্থ্যকর জীবনধারার জন্য ম্যারাথন দৌড়ের প্রয়োজন নেই। 

আমাদের স্বাস্থ্যের ভালো রাখার জন্য হাঁটা, দৌড়ানো, সাইকেল চালানো এবং এমনকি নাচ করা  ভালো। আপনি উপভোগ করার জন্য এমন একটি কার্যকলাপ চয়ন করুন যা আপনাকে ব্যস্ত রাখবে। এটি আপনাকে এটির সাথে লেগে থাকতে এবং দুর্দান্ত ফলাফল অর্জন করতে এবং কিডনির স্বাস্থ্য বজায় রাখতে সহায়তা করবে। 

রক্তে শর্করার মাত্রা বজায় রাখাঃ

আপনি যদি ডায়াবেটিসে ভোগেন, বা উচ্চ রক্তে শর্করার দিকে পরিচালিত করে, তাহলে আপনি কিডনির ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারেন। শরীরে যখন বাইরে থেকে(চিনি) ব্যবহার করতে পারেন না তখন কিডনি  রক্তকে ফিল্টার করার জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে হয়। বছরের পর বছর পরিশ্রমের পরে এটি জীবনের জন্য হুমকির হুমকি হতে পারে।

আপনি যদি আপনার ব্লাড সুগার পরিচালনা করেন, তাহলে আপনি ক্ষতির ঝুঁকি কমাতে পারেন। তদ্ব্যতীত, যত তাড়াতাড়ি ক্ষয়ক্ষতি শনাক্ত করা হয়, ততই ক্ষতি হ্রাস বা প্রতিরোধ করার সম্ভাবনা বেশি

রক্তচাপ নিরীক্ষণ করুনঃ

উচ্চ রক্তচাপের ফলে কিডনির ক্ষতি হতে পারে। ডায়াবেটিস, হৃদরোগ বা উচ্চ কোলেস্টেরলের মতো অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যাগুলির সাথে উচ্চ রক্তচাপ দেখা দিলে আপনার শরীরের উপর মারাত্মক ভাবে কিডনির ক্ষতি করতে পারে। রক্তচাপের একটি সুস্থ রিডিং হল ১২০/৮০। 

নিয়ম তান্ত্রিক জীবন ব্যবস্থা এবং খাদ্য আপনার রক্তচাপ কমাতে ভূমিকা রাখতে পারে। যদি রক্তচাপ নিয়মিতভাবে ১৪০/৯০ ছাড়িয়ে গেলে উচ্চ রক্তচাপ নির্দেশ করে। তাহলে আপনি অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন এবং নিয়মিত ব্লাড প্রেসার চেক করবেন। 

আরো পড়ুনঃবাত-ব্যথা রোগের চিকিৎসা ও প্রতিকার

ধূমপান এড়িয়ে চলুনঃ

ধূমপানের ফলে  শরীরের নিকোটিনের মাত্রা বেড়ে যায় ফলে রক্তনালীগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়।  সারা শরীরে, বিশেষ করে  কিডনিতে রক্তের প্রবাহ কমে যায়।

আপনি যদি ধূমপান করেন তবে আপনার ফুসফুসে ক্যান্সার এবং কিডনি ক্যান্সার  হওয়ার সম্ভাবনাও বেশি। ধূমপান ত্যাগে মাধ্যমে ঝুঁকি হ্রাস করা যায়। ঝুঁকির মাত্রা এমন একজনের কাছে ফিরে আসতে অনেক সময় লাগবে যিনি কখনও ধূমপান করেননি।

ওজন বজায় রাখুনঃ

অতিরিক্ত ওজন বা স্থূল কিডনির ক্ষতির পাশাপাশি অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যার ঝুঁকিতে থাকে। বিশেষ করে  ডায়াবেটিক , হৃদরোগ, উচ্চ রক্তচাপএবং দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ সবই সম্ভব।

কম সোডিয়াম, পটাসিয়াম ফসফরাসযুক্ত খাবার খাওয়া এবং কিডনি ক্ষতিকারক অন্যান্য খাবার এড়িয়ে কিডনির ক্ষতির ঝুঁকি কমানো সম্ভব। প্রতি সপ্তাহে, ফুলকপি, ব্লুবেরি, মাছ এবং শস্যের   তাজা, প্রাকৃতিকভাবে কম সোডিয়াম উপাদানগুলি গ্রহণ করুন।

প্রচুর পরিমাণে তরল বা পানি পান করুনঃ

যদিও এটি গোপন নয় যে হাইড্রেটেড থাকার জন্য আমাদের দিনে ৮ গ্লাস জল পান করা উচিত। আপনার কিডনি নিয়মিত, ধারাবাহিক জল খাওয়া থেকে উপকৃত হয়।আপনার কিডনি সোডিয়াম এবং টক্সিন অপসারণ করে জল দিয়ে পরিষ্কার করা হয়। এছাড়াও, আপনি যদি নিয়মিত পানি পান করেন তবে আপনার দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটা কম থাকে। 

প্রতিদিন কমপক্ষে ১.৫ থেকে ২ লিটার জল পান করা উচিত। আপনার স্বাস্থ্য এবং জীবনধারার উপর নির্ভর করে, আপনার আলাদা পরিমাণে জল প্রয়োজন। প্রতিদিনের জল খাওয়ার পরিকল্পনা করার সময়, জলবায়ু, ব্যায়াম, লিঙ্গ, স্বাস্থ্যের অবস্থা এবং আপনি গর্ভবতী বা বুকের দুধ খাওয়াচ্ছেন কিনা তা বিবেচনা করা উচিত।পরিমাপমতো পানি পান করলে ভবিষ্যতে কিডনিতে পাথর হওয়া রোধ করা সম্ভব। যাদের ইতিমধ্যেই হয়েছে।

লবণ ঃ

খাবার সময় অনেক লবণ খান ? এ অভ্যাসে অতি শীঘ্রই  পরিবর্তন করুন। আপনার কিডনি অতিরিক্ত সোডিয়াম শরীর থেকে বের করতে পারে না। ফলে বাড়তি লবণের সোডিয়ামটুকু জমা থেকে যায় কিডনিতেই। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয় কিডনি।

 প্রস্রাব আটকে রাখা ঃ

 তাই বাইরে বেরোলে আটকে রাখেন প্রস্রাব? এমন অভ্যাস কিন্তু শরীরের জন্য খুব ক্ষতিকর। অনেকক্ষণ প্রস্রাব চেপে রাখলে তা কিডনিতে চাপ তো ফেলেই, সেই সাথে মূত্রথলিতে ইনফেকশন হতে পারে। চিকিৎসকদের মতে, এমন অভ্যাস দীর্ঘদিন ধরে বজায় রাখলে অচিরেই নষ্ট হতে পারে কিডনি।

মাছ মাংস কম কম খেতে হবেঃ

মাংস না খেয়ে মাছ-শাকসবজি খান। চর্বি কিডনির জন্য খুব ক্ষতিকারক। মাংসের ফাইবারও পরিমাণে বেশি হলে তা কিডনির ওপর চাপ ফেলে। তাই ঘন ঘন মাংস খাওয়ার প্রবণতা থাকলে তা কমান, খেলেও খুব পরিমাণ মেপে খান।

আরো পড়ুনঃওষুধ খেয়ে কি দ্রুত ওজন কমানো যায়? জেনে নিন

পেইন কিলারঃ

সামান্য ব্যথা হলেই পেইন কিলার খাওয়ার অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে আজই । কিডনির কোষের মারাত্মক ক্ষতি করে পেইন কিলার। হলে ব্যথা হলেই পেন কিলার খাওয়া যাবেনা। পেনকিলার খেতে হলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। 

কোমল পানীয়, কফি, চাঃ

আমরা প্রতিনিয়ত কোমল পানীয়, কফি, চাসহ বিভিন্ন খাবার খেয়ে থাকি। এগুলোতে থাকে প্রচুর পরিমাণে ক্যাফেইন তাৎক্ষণিকভাবে শারীরে ক্লান্তিভাব দূর করে। তবে পানিস্বল্পতা তৈরি করে। শরীরে পানিস্বল্পতা হলে কিডনি স্টোনের সমস্যা হতে পারেন।তাই সতর্ক হোন।   

কিভাবে বুঝবেন আপনি কিডনি রোগে আক্রান্তঃ

কিডনি রোগ ধরা পড়ে ধীরে ধীরে।কখনো উপসর্গ দেখা দেয়, কখনো দেখা দেয়না।উপসর্গগুলো হতে পারে-

  •  ক্ষুধামন্দা
  •   স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি ক্লান্তিবোধ করা
  •  পেট খারাপ হওয়া।
  •  বমি বমি ভাব
  •  স্বাভাবিকে তুলনায় বেশিবার প্রস্রাব হওয়া
  •  প্রস্রাবে রক্ত যাওয়া
  •  ফেনাযুক্ত বা বিবর্ণ রংয়ের প্রস্রাব হওয়া
  •  পা বা পায়ের পাতা ফুলে যাওয়া
  •  মাথা ব্যাথা

কিডনির কার্যকারিতা হ্রাস পেলে যাতে প্রভাব পড়ে।

  • অস্থি
  • হার্ট
  • ইমিউন সিস্টেম
  • নার্ভাস সিস্টেম।

নিম্নের এসব পরীক্ষার ফলাফল আপনাকে চিন্তিত করতে পারে আপনি কিডনি রোগী কি না......

  •  প্রস্রাব পরীক্ষার মাধ্যমে প্রোটিন, অ্যালবুমিন, ক্রিটিনাইন
  •  ২৪ ঘন্টায় মোট প্রস্রাবের পরিমাণ নির্ধারণ
  •  রক্তের সিবিসি পরীক্ষা
  •  রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে সোডিয়াম, পটাশিয়াম, ইউরিয়া নাইট্রোজেন ও ক্রিটিনাইন-এর অবস্থা জানা
  •  এক্সরে
  •  এমআরআই
  •  সিটি স্ক্যান  
  •  আল্ট্রাসাউন্ড

শেষ কথাঃ

এই বিষয়ে যদি আপনি আরো জানতে চান তাহলে আমাদেরকে কমেন্ট করুন। আমাদের পোস্টটি আপনার কাছে ভালো লাগলে আমাদের শেয়ার করুন।আজকে তাহলে এখানেই শেষ করা যাক। কথা হবে পরের কোন একটি নতুন আর্টিকেলে নিয়ে।ধন্যবাদ।২০৩

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

বন্ধুমহল আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url